Saturday, June 20, 2015

ইউএস ডলার ইআরকিউ (এক্সপোর্টার রিটেনশন কোটা)

স্ট্যান্ডার্ড চার্টার্ড ব্যাংক বেসিস এর সহযোগিতায় কয়েক ধরনের সেভিং একাউন্ট ও ইউএস ডলার ইআরকিউ (এক্সপোর্টার রিটেনশন কোটা) একাউন্ট চালু করেছে।

এই সেবাটির উদ্বোধন উপলক্ষে রাজধানীর এক অভিজাত হোটেল সংবাদ সম্মেলনের আয়োজন করা হয়। এই সময় উপস্থিত ছিলেন, মাননীয় ডাক, টেলিযোগাযোগ ও তথ্য যোগাযোগ প্রযুক্তি বিষয়ক প্রতিমন্ত্রী জুনাইদ আহমেদ পলক, স্ট্যান্ডার্ড চার্টার্ড বাংলাদেশ এর হেড অব রিটেইল ক্লায়েন্ট আদিত্য মান্ডলই এবং বাংলাদেশ অ্যাসোসিয়েশন অব সফটওয়্যার অ্যান্ড ইনফরমেশন সার্ভিস (বেসিস) এর মাননীয় প্রেসিডেন্ট শামীম আহসান।

সংবাদ সম্মেলনে জানানো হয়, আউটসোর্সিং রপ্তানি সেবায় নিয়োজিত ব্যক্তিক অথবা পেশাজীবীদের জন্য এটি একটি দারুন প্রস্তাবনা। গ্রাহকেরা আউটসোর্সিং সেবার মাধ্যমে পেমেন্ট হিসেবে অভ্যন্তরীণ রেমিটেন্স আয় করতে পারেন। আর এ ক্ষেত্রে সর্বোচ্চ ৬০ ভাগ বৈদেশিক মুদ্রা ইআরকিউ একাউন্টে যুক্ত হতে পারে এবং দেশীয় মুদ্রা সেভিং একাউন্টে যুক্ত হতে পারে। 

বেসিস এর প্রেসিডেন্ট জনাব শামীম আহসান বলেন, আউটসোসিং এর ক্ষেত্রে ব্যাংকিং একটি চ্যালেঞ্জি বিষয়। এই সুবিধার ফলে ব্যাংকের সাথে আমাদের একটি সেতুবন্ধন তৈরি হবে। 

তিনি বলেন, এবারের অর্থ বছরের বাজেটের ৫০ শতাংশ সফটওয়্যার ও ই-কমার্স খাতে ব্যবহার করা হবে।

এই সময় তিনি মাননীয় অর্থমন্ত্রীর কাছে ই-কমার্সের উপর থেকে ভ্যাট প্রত্যাহারের দাবি জানান।

জুনাইদ আহমেদ পলক বলেন, এই সুবিধার ফলে আউটসোসিং পেশাদাররা দ্রুত, নিরাপদ এবং বৈধ উপায়ে মুদ্রা আনতে পারবে, অর্থ লেনদেন সহজ হয়ে গেল। এখন যে পরিমাণ অর্থ ফ্রিল্যান্সিং সেক্টর থেকে আয় হয়, এই সুবিধার ফলে এর গতি এক ধাপ এগিয়ে যাবে। 

এক্ষেত্রে বেসিস আউটসোর্সিং পেশাদারদের একটি সনদপত্র প্রদান করবে যাতে এই সুযোগটি ব্যাংক থেকে পেতে সাহায্য করে। এই সনদপত্র থেকে একজনকে গুনতে হবে ৩ হাজার টাকা। 

আপনার কম্পিউটার শর্টকাট ভাইরাসমুক্ত

যারা অনেকদিন ধরে কম্পিউটার, ল্যাপটপ ব্যবহার করছেন তাদের সবারই কমবেশি শর্টকাট ভাইরাসের মুখোমুখি হবার অভিজ্ঞতা রয়েছে। এটি আসলে কী? কোন কারণ ছাড়াই হঠাৎ একদিন দেখলেন কম্পিউটার শর্টকাট ফাইল-ফোল্ডারে ভরে গেছে। বারবার ডিলিট করছেন, আবার তৈরি হচ্ছে। হুটহাট অনেক ফাইল-ফোল্ডার হারিয়েও যাচ্ছে। ইদানীং এই সমস্যায় প্রায় সবাই পড়ছেন। এটি মূলত কোনো ভাইরাস নয়। এ হলো VBS Script (ভিজুয়াল বেসিক স্ক্রিপ্ট)। নিচের ধাপগুলো অনুসরণ করে এ যন্ত্রণা থেকে খুব সহজেই মুক্তি পেতে পারেন।

CMD ব্যবহার করে

১. ওপেন CMD (Command Prompt – DOS)

২. নিচের কমান্ডটি হুবহু লিখুন

attrib -h -s -r -a /s /d Name_drive:*.*

এবার Name_drive লেখাটিতে যে ড্রাইভটি আপনি শর্টকাট ভাইরাসমুক্ত করতে চান সেটি লিখুন। যেমন: C ড্রাইভ ভাইরাসমুক্ত করতে চাইলে লিখুন attrib -h -s -r -a /s /d c:*.*

৩. এন্টার বাটন চাপুন

৪. এবার দেখবেন শর্টকাট ভাইরাস ফাইল ও ফোল্ডারগুলো স্বাভাবিক হয়ে যাবে। এবার ওই ফাইল ও ফোল্ডারগুলো ডিলিট করে দিন।

.bat ব্যবহার করে

Bat ফাইল হলো নোটপ্যাডে লেখা একটি একজেকিউটেবল ফাইল। এতে ডাবল ক্লিক করলেই চালু হয়ে যায়।

১. নোটপ্যাড ওপেন করুন।

২. নিচের কোডটি হুবহু কপি-পেস্ট করুন

@echo off

attrib -h -s -r -a /s /d Name_Drive:*.*

attrib -h -s -r -a /s /d Name_Drive:*.*

attrib -h -s -r -a /s /d Name_Drive:*.*

@echo complete.

৩. এবার Name_Drive এর জায়গায় ভাইরাস আক্রান্ত ড্রাইভের নাম লিখুন। যদি তিনটির বেশি ড্রাইভ আক্রান্ত হয় তাহলে কমান্ডটি শুধু কপি-পেস্ট করলেই চলবে।

৪. removevirus.bat এই নাম দিয়ে ফাইলটি সেভ করুন।

৫. এবার ফাইলটি বন্ধ করে ডাবল ক্লিক করে রান করুন।

৬. এবার দেখবেন আপনার শর্টকাট ভাইরাস ফাইল-ফোল্ডারগুলো সব স্বাভাবিক হয়ে গেছে। এখন সব ডিলিট করে দিন।

এছাড়া নিচের কৌশলও নিতে পারেন

আক্রান্ত পেনড্রাইভ থেকে বাঁচতে

১. RUN এ যান।

২. wscript.exe লিখে ENTER চাপুন।

৩. Stop script after specified number of seconds: এ 1 দিয়ে APPLY করুন। এবার কারো পেনড্রাইভের শর্টকাট ভাইরাস আর আপনার কম্পিউটারে ঢুকবে না।

আক্রান্ত কম্পিউটার ভাইরাসমুক্ত করতে

১. কী বোর্ডের CTRL+SHIFT+ESC চাপুন।

২. PROCESS ট্যাবে যান।

৩. এখানে wscript.exe ফাইলটি সিলেক্ট করুন।

৪. End Process এ ক্লিক করুন।

৫. এবার আপনার কম্পিউটারের C:/ ড্রাইভে যান।

৬. সার্চ বক্সে wscript লিখে সার্চ করুন।

৭. wscript নামের সব ফাইলগুলো SHIFT+DELETE দিন।

৮. যেই ফাইলগুলো ডিলিট হচ্ছে না ওইগুলো স্কিপ করে দিন।

৯. এখন RUN এ যান।

১০. wscript.exe লিখে ENTER চাপুন।

১১. Stop script after specified number of seconds: এ 1 দিয়ে APPLY করুন।

ব্যাস, আপনার কম্পিউটার শর্টকাট ভাইরাসমুক্ত। এবার পেনড্রাইভের শর্টকাট ভাইরাসও আর আপনার কম্পিউটারে ডুকবে না।